সুস্থ থাকার উপায়

বিভিন্ন দৈনিক সংবাদপত্র থেকে নেয়া চিকিৎসা সংক্রান্ত কিছু লেখা…

সুস্থ থাকার উপায় - বিভিন্ন দৈনিক সংবাদপত্র থেকে নেয়া চিকিৎসা সংক্রান্ত কিছু লেখা…

দুধ, মিউকাস এবং কাশি

আমরা ভাত মাছ গোশতসহ কত কি-না খাবার খেয়ে থাকি তেমনি একটি খাবার দুধ। কিছু রোগী অভিযোগ করেন যে, দুধ খেলে তাদের সর্দি হয়, গলায় অস্বস্তি হয় এবং কাশি হয়। কেন এসব ঘটে?

বিস্তারিত পড়ুন…

রোগ প্রতিরোধে রঙিন ফল ও সবজি

​ চোখের রোগ

রাতকানা সবারই জানা একটি রোগ, এ ছাড়াও বিটটস স্পট, কেরাটোম্যালাশিয়া কর্নিয়াল আলসার ছবি পড়া ইত্যাদি চোখের রোগ ঠেকাতে রঙিন শাকসবজি ও ফলমূল অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। বিস্তারিত পড়ুন…

ব্রংকিয়েকটিসিস : দীর্ঘস্থায়ী বক্ষব্যাধি

ব্রংকিয়েকটিসিস একধরনের বক্ষব্যাধি। এর লক্ষণ ও উপসর্গ অনেকটা যক্ষ্মার মতোই। তাই এ দু’টি রোগ নির্ণয়ে অনেক সময় ভুল হওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে প্রচুর রোগী অযথা যক্ষ্মা রোগের ওষুধ মাসের পর মাস বিনা উপকারেই খেয়ে চলেছেন। হিসাব কষলে দেখা যাবে, ব্রংকিয়েকটিসিস রোগে আক্রান্ত রোগী সংখ্যায় নেহায়েত কম নয়, যদিও অ্যান্টিবায়োটিকের আবিষ্কারের আগে এর উপস্থিতি ছিল ব্যাপক।
এটা ফুসফুসের একটি দীর্ঘস্থায়ী রোগ। এ রোগের ফলে ফুসফুসের শ্বাসনালীতে বড় ধরনের প্রদাহ দেখা দেয়। আক্রান্ত স্থানের শ্বাসনালীগুলো তখন ফুলে মোটা হয়ে যায়।

বিস্তারিত পড়ুন…

ডায়াবেটিসে চোখের পাওয়ার

ডায়াবেটিসের সাথে চোখের পাওয়ারের একটা সরাসরি যোগ রয়েছে। রক্তে শর্করা বৃদ্ধি বা কমার ফলে চোখের পাওয়ারও সাময়িকভাবে বাড়তে পারে বা কমতে পারে। অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিসে রক্তে শর্করার পরিমাণ বৃদ্ধি পেলে চোখের অ্যাকুয়াস হিউমারেও শর্করার পরিমাণ বৃদ্ধি পায়। এর ফলে চোখের ভেতরে থাকা লেন্সে আস্রাবন বা অসমোটিক পরিবর্তন হয়। এতে লেন্সের মধ্যে পানি ও চিনি বেশি করে প্রবেশ করে লেন্সটি পুরু হয়ে যায়। এর ফলে লেন্সের পাওয়ার আগের চেয়ে বৃদ্ধি পায়।

বিস্তারিত পড়ুন…

উচ্চ রক্তচাপ ও হৃদরোগ

রক্ত ধমনীর ভেতর দিয়ে প্রবাহের সময় ধমনীর দেয়ালে দেয়া চাপকে রক্তচাপ বলা হয়। মনে রাখবেন, রক্তচাপ সবারই থাকে, যদি স্বাভাবিক মাত্রার চেয়ে বেশি থাকে, তখন তাকে উচ্চ রক্তচাপ বা হাইপারটেনশন বলা হয়। সাধারণত রক্তচাপ সকাল বেলা বেশি থাকে। বিকেলের দিকে কম থাকে। দুশ্চিন্তা, দুঃখ, উত্তেজনা ও শারীরিক পরিশ্রম রক্তচাপ বৃদ্ধি করে।

বিস্তারিত পড়ুন…

ঘাড়ে বাতজনিত সমস্যা

ঘাড়ে বাতের ব্যথা সর্বদা ঘাড়ের পেছনে অনুভূত হয়, কখনোই ঘাড়ের সামনের দিকে অনুভূত হবে না। ব্যথা তীব্র হলে তা কাঁধে ও বাহুর পেছনের দিকে কনুই পর্যন্ত ছড়িয়ে পড়তে পারে। কখনো কখনো ব্যথা হাতে ও আঙুলে ছড়িয়ে পড়ে। বয়স বাড়ার সাথে সাথে মেরুদণ্ড ও ঘাড়ের হাড় ও কার্টিলেজে কিছু পরিবর্তন ঘটতে থাকে, যার কারণে ঘাড়ে বাতের সমস্যা হয়। চিকিৎসা পরিভাষায় তাকে বলে সার্ভাইক্যাল স্পনডাইলোসিস।

বিস্তারিত পড়ুন…

যে রোগে স্মৃতিশক্তি নষ্ট হয়

অতি পরিচিতজন, দীর্ঘ দিন দেখা-সাক্ষাৎ নেই, হঠাৎ করেই রাস্তায় বা বাজারে দেখা হলো, উষ্ণ আন্তরিকতা বিনিময় হলো, পরিশেষে লোকটি চলেও গেলেন, কিন্তু আপনি শত চেষ্টা করেও তার নাম মনে করতে পারলেন না; যেকোনো বয়সেই এমনটি হতে পারে এটা মারাত্মক রোগ নয়, কিন্তু অনেক সময় এটা মতিভ্রষ্ট বা মাথা খারাপের পূর্বলক্ষণ হিসেবেও দেখা দিতে পারে।

বিস্তারিত পড়ুন…

লালাগ্রন্থির সমস্যা মামস

প্রত্যেক মানুষের মুখের দুই পাশে ও কানের নিচে দু’টি প্যারোটিড গ্রন্থি রয়েছে। যেসব কারণে প্যারোটিড গ্রন্থি ব্যথাসহ ফুলে উঠে তন্মধ্যে সর্বাপেক্ষা কমন কারণ হলো মামস। মামস মূলত প্যারামিক্রোডাইরাসের সংক্রমণে হয়ে থাকে।  শিশুরাই আক্রান্ত হয় সর্বাপেক্ষা বেশি। এটি অত্যন্ত সংক্রামক ব্যাধি এবং ছড়ায় মূলত আক্রান্ত রোগীর লালার মাধ্যমে।

বিস্তারিত পড়ুন…

মেয়েলি সমস্যা : মাসিকপূর্ব ব্যথা

কিছু কিছু মহিলার মাসিক চক্র শুরু হওয়ার কিছু দিন আগে শারীরিক, মানসিক ও আবেগজনিত কিছু অস্বস্তিকর অবস্থা দেখা দেয়। এই অবস্থাকে প্রিম্যানুস্ট্রাল সিনড্রোম বলা হয়। বাস্তবে কিন্তু প্রায় ১৫০ রকমের সমস্যা বা উপসর্গ এই অবস্থায় দেখা যেতে পারে। তবে যে ক’টি খুব বেশি কমন উপসর্গ দেখা যায়, সেগুলো হচ্ছে হতাশা, টেনশন, দুশ্চিন্তা, মনের অস্থিরতা, রাগ হওয়া, মনোযোগের অভাব, অবসাদগ্রস্ততা, ওজন বাড়া, শরীরে পানি জমা, পেট ফোলা, স্তনে ব্যথা, হাড় অথবা মাংসপেশিতে ব্যথা, বমি ভাব, বমি হওয়া, মাথা ব্যথা ইত্যাদি। বিভিন্ন সমীক্ষায় দেখা যায়, শতকরা ৪০ ভাগ মহিলার এ সমস্যা খুবই তীব্র আকার ধারণ করতে পারে। যার ফলে তাদের দৈনন্দিন জীবনের কার্যকারিতা ব্যাহত হতে পারে।

বিস্তারিত পড়ুন…

এই শীতে পা ফাটা

শীত এসেছে। তাই বেড়ে গেছে পা ফাটার সমস্যা। যাঁদের ত্বক শুষ্ক, তাঁদের পা আরও বেশি করে ফাটে। যেমন: বয়স্ক, ডায়াবেটিস ও থাইরয়েড রোগ আছে এমন ব্যক্তিদের। ত্বকের নানা রোগে, যেমন সিরোসিসে যাঁরা ভোগেন, তাঁদেরও পা ফাটে বেশি। এ থেকে কিন্তু জীবাণু সংক্রমণ, রক্তপাত, চামড়া উঠে যাওয়াসহ নানা বিপদ হতে পারে। আর দেখতে খারাপ তো লাগেই।

বিস্তারিত পড়ুন…

শিশু যখন বদমেজাজি

অনেক শিশুকে নিয়ে মা-বাবারা বিপদে পড়েন। বিশেষ করে পাঁচ-ছয় বছরের শিশুরা যদি খুব খিটখিটে বদমেজাজি বা রাগী হয়ে ওঠে। বলার সঙ্গে সঙ্গে জিনিসটি কিনে না দেওয়া হলে কিংবা কোনো জায়গা থেকে চলে যাওয়ার প্রশ্নে রাজি করাতে না পারলে তার মধ্যে বিপুল ক্রোধ জন্ম নেয়। তখন সে এমন আচরণ শুরু করে দেয়, যা সহ্যের বাইরে চলে যেতে পারে। ভয় পাওয়া, ভীষণ ক্লান্তি কিংবা শারীরিক অসুস্থতার কারণে শিশুরা এ ধরনের ক্ষিপ্ত আচরণ করে থাকতে পারে।

বিস্তারিত পড়ুন…

মাঝবয়সে ডায়াবেটিস?

মাঝবয়সে ডায়াবেটিস ধরা পড়লে জীবনযাপনের ধরনে অনেক পরিবর্তন আনতে হয়। সুস্থ থাকার জন্য তখন চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী খাওয়া, ঘুম, শরীরচর্চা ইত্যাদি বিষয়ে সুশৃঙ্খল বিভিন্ন অভ্যাস রপ্ত করতে হয়। নিয়ন্ত্রিত জীবন কাটাতে পারলে ডায়াবেটিস নিয়েও ভালো থাকা যায়।

বিস্তারিত পড়ুন…

মোট 37 পৃষ্ঠা এর মধ্যে 4« প্রথম পাতা...23456...102030...শেষ পাতা »