সুস্থ থাকার উপায়

বিভিন্ন দৈনিক সংবাদপত্র থেকে নেয়া চিকিৎসা সংক্রান্ত কিছু লেখা…

সুস্থ থাকার উপায় - বিভিন্ন দৈনিক সংবাদপত্র থেকে নেয়া চিকিৎসা সংক্রান্ত কিছু লেখা…

ডেঙ্গু জ্বরের প্রার্দুভাব : বাচ্চাদের ফুল হাতা জামা পরান

প্রলম্বিত বর্ষার কারণে চলতি বছর ডেঙ্গু জ্বরের ব্যাপক প্রার্দুভাব দেখা দিয়েছে।
স্বাস্থ্য অধিদফতর বিগত মার্চ থেকে এ পর্যন্ত মশাবাহিত এই রোগে ১ হাজার ২৭৭ জন ডেঙ্গু রোগী সনাক্ত করেছে। এর মধ্যে ৪ জন ইতোমধ্যে মৃত্যুবরণ করেছেন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল ইউনিভার্সিটির (বিএসএমএমইউ) মেডিসিন ফ্যাকাল্টির ডিন অধ্যাপক ড. এ বি এম আবদুল্লাহ বাসসকে বলেন, চলতি বছর বর্ষার ব্যাপকতায় বিগত মার্চ মাস থেকে ডেঙ্গু রোগীর চিকিৎসা সেবা দেয়া হচ্ছে।

বিস্তারিত পড়ুন…

বাতরোগের চিকিৎসায় স্টেরয়েড

স্টেরয়েড হলো কৃত্রিমভাবে তৈরি প্রদাহ বিরোধী বিকল্প হরমোন। হরমোনগুলোর নাম হলো কর্টিকো স্টেরয়েড ও গ্লুকোকর্টিকয়েড, শরীরের অ্যাড্রেনাল গ্রন্থি এগুলো তৈরি করে। ওষুধ তৈরি হয় এসব নামে যেমন ডেক্সামেথাসন, হাইড্রোকর্টিসন এবং প্রেডনিসোলন।

বিস্তারিত পড়ুন…

প্যারাসিটামল সম্পর্কে যে ১০টি তথ্য জেনে রাখা অত্যন্ত জরুরী!

paraব্যথা ও জ্বর নিরাময়ে প্যারাসিটামলের মতো নিরাপদ ওষুধ খুব বেশি নেই বলেই এটি আমাদের দেশে বহুল ব্যবহৃত। তাই আমরা কোন কারণে মাথা ব্যথা, জ্বর কিংবা শারীরিক কোন ব্যথা হলে প্যারাসিটামল সেবন করি। কিন্তু এই ক্ষেত্রে সতর্কতা প্রয়োজন, কেবল টুপ করে ট্যাবলেট গিলে ফেললেই সমস্যার সমাধান হবে না। বরং বাড়বে! প্যারাসিটামল সম্পর্কে আমাদের জানার পরিধি আরও কিছুটা বাড়ালে সবার উপকার হবে। আসুন জেনে নিই প্যারাসিটামল সম্পর্কে এমন কিছু তথ্য, যা জানা থাকা খুবই জরুরী।

বিস্তারিত পড়ুন…

ঠাণ্ডা জ্বরের প্রতিকার

কমন কোল্ড বা ঠাণ্ডা লাগা। আমাদের দেশে ভাইরাসজনিত ঠাণ্ডা লাগার প্রবণতা সবচেয়ে বেশি। ঠাণ্ডা লাগলে রোগী অসুস্থ বোধ করে, জ্বর জ্বর ভাব লাগে, মাথা ধরে, নাক দিয়ে পানি ঝরে। হাঁচি আসে। নাক দিয়ে শ্লেষ্মা বেরোতে পারে। নাক বন্ধ হতে পারে। গলা ব্যথা হতে পারে, রক্তের শ্বেতকণিকার সংখ্যা বাড়তে পারে।

বিস্তারিত পড়ুন…

সব জ্বরেই অ্যান্টিবায়োটিক নয়

কখনও জ্বরে ভোগেনি এমন লোক পাওয়া মুশকিল। তবে জ্বর কোনো অসুখ নয়, অসুখের লক্ষণ মাত্র। আবার গা গরম হওয়া মানেই কিন্তু জ্বর নয়। সংজ্ঞানুসারে শরীরের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণকারী মানদণ্ড স্বাভাবিকের চেয়ে বেড়ে গিয়ে যদি শরীরের তাপমাত্রা ৩৬.৫ সেন্টিগ্রেড-৩৭.৫ সেন্টিগ্রেড (৯৮-১০০ ফারেনহাইট) থেকে বেড়ে যায় তবেই জ্বর বলে ধরে নেয়া হয়। সাধারণত শরীরের তাপমাত্রা ৯৮.৪ বা ৯৮.৬ ফারেনহাইট থাকে। ১ ফারেনহাইট কম বা বেশিও হতে পারে। আবার দিনের বিভিন্ন সময়ও তাপমাত্রা ১ ফারেনহাইট কমবেশি হতে পারে। এটা স্বাভাবিক।

বিস্তারিত পড়ুন…

সর্দি-জ্বরের কারণ ও করণীয়

সর্দি-জ্বরের কারণ ও করণীয়সর্দি-জ্বর কমন কোল্ড বাংলাদেশের অত্যন্ত পরিচিত রোগ। আমাদের দেশে সম্ভবত এমন লোক খুঁজে পাওয়া যাবে না যার বছরে অন্তত দু’একবার সর্দি-জ্বর হয়নি। রাস্তাঘাট, স্কুল-কলেজ কিংবা অফিসপাড়ায় প্রায়ই হাঁচি দিতে থাকা অথবা নাকের পানি মুছতে থাকা লোকজন নজরে পড়ে। ধনী-গরিব, শিক্ষিত-অশিক্ষিত, চিকিত্সক-প্রকৌশলী আমরা কেউ এ রোগ থেকে মুক্ত নই। একবিংশ শতকেও এ বিরক্তিকর রোগটি থেকে আমরা রেহাই পাইনি।

বিস্তারিত পড়ুন…

শিশুর জ্বর ও খিঁচুনি রোগ

শিশুর জ্বর কোনো কোনো শিশুর বিভিন্ন সময় জ্বর তরতর করে বেড়ে যায়। তারপরই শুরু হয় শরীরজুড়ে খিঁচুনি। মোটামুটি ৩৯ সে: বা ১০২ সে: ফারেনহাইটে জ্বর উঠে গেলে এ অবস্থা হয়। চোখ উল্টে যায় এবং দাঁতে দাঁত লেগে যেতে পারে। এ ব্যাপারটি কযেক সেকেন্ড থেকে ৫-১০ মিনিট পর্যন্ত চলতে পারে। শিশুটি এরপর ঘুমিয়ে পড়ে। আমাদের দেশের প্রায ৩-৪ শতাংশ শিশুর এ সমস্যা হয়। সাধারণত এ রকম খিঁচুনি ৯ মাস বয়সের আগে বা চার বছরের পর হয় না।

বিস্তারিত পড়ুন…

জ্বর: কারণ ও করণীয়

জীবনে কখনও জ্বর হয়নি এমন কাউকে খুঁজে পাওয়া যাবেন না। ছোটদের তো বটেই, অনেক বড়দেরও বছরে অন্তত: একবার হলেও জ্বরে আক্রান্ত হতে হয়। জ্বরের মাত্রা রোগ ভেদে অল্প বা বেশি হতে পারে। কেউ কেউ অল্প কিছুদিন জ্বরে ভোগেন, কারো আবার দিনের পর দিন এমন কি মাসের পর মাস জ্বর আসে। আসলে জ্বর কোন অসুখ নয়, বরং অসুখের লক্ষণ, একটি সাধারণ উপসর্গ।

বিস্তারিত পড়ুন…