সুস্থ থাকার উপায়

বিভিন্ন দৈনিক সংবাদপত্র থেকে নেয়া চিকিৎসা সংক্রান্ত কিছু লেখা…

সুস্থ থাকার উপায় - বিভিন্ন দৈনিক সংবাদপত্র থেকে নেয়া চিকিৎসা সংক্রান্ত কিছু লেখা…

সাবধান! কিডনির অসুখ কেড়ে নিতে পারে প্রাণ

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

বাড়ছে কিডনি জটিলতা। ডায়াবেটিস ও উচ্চ রক্তচাপ এখন ঘরে ঘরে৷ বিভিন্ন সমীক্ষার রিপোর্ট বলছে, পারিবারিক ইতিহাসে কিডনির সমস্যা থাকলে, ইউরিন ইনফেকশন হলে কিংবা দীর্ঘদিন ডায়াবেটিস ও উচ্চ রক্তচাপ থাকলে কিডনির অসুখে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা বাড়ে৷ ওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশন বা ‘হু’-র দাবি, সারা বিশ্বে কিডনির অসুখে প্রতি বছর মৃত্যু হয় প্রায় সাড়ে আট লাখ মানুষের৷ অর্থাৎ একবার অকেজো হলে ধনেপ্রাণে মেরে দেয় কিডনির অসুখ৷ তাই আগে থেকেই সতর্ক হওয়া উচিত৷

বিস্তারিত পড়ুন…

কিডনি রোগ প্রতিরোধ সম্ভব

কিডনি যখন নিজস্ব কোনো রোগে আক্রান্ত হয় অথবা অন্য কোনো রোগে কিডনি আক্রান্ত হয়, যার ফলে কিডনির কার্যকারিতা ৩ মাস বা ততোধিক সময় পর্যন্ত লোপ পেয়ে থাকে তখন তাকে দীর্ঘস্থায়ী কিডনি রোগ বলা হয়। তবে বিশেষ ক্ষেত্রে যদি কিডনি রোগ ছাড়াও কিডনির কার্যকারিতা লোপ পায় তাহলেও তাকে দীর্ঘস্থায়ী কিডনি রোগ বলা যেতে পারে।

যেমন—ক্রনিক নেফ্রাইটিস কিডনির ফিল্টারকে আক্রমণ করে ক্রমেই কিডনির কার্যকারিতা কমিয়ে দীর্ঘস্থায়ী কিডনি রোগ হতে পারে। তেমনি ডায়াবেটিস বা উচ্চরক্তচাপ কিডনি রোগ না হওয়া সত্ত্বেও কিডনির ফিল্টার/ছাকনি ধ্বংস করতে পারে। আবার কারও যদি জন্মগতভাবে কিডনির কার্যকারিতা কম থাকে অথবা কিডনির আকার ছোট বা বেশি বড় থাকে তাহলেও দীর্ঘস্থায়ী কিডনি রোগ হতে পারে।

বিস্তারিত পড়ুন…

ধীরে ধীরে কিডনি বিকল

ধীরে ধীরে কিডনি বিকলকিডনির প্রাথমিক রোগে বা অন্য কোনো কারণে কিডনি আক্রান্ত হয়ে ধীরে ধীরে মাসের পর মাস বা বছরের পর বছর ধরে যদি দুটো কিডনিরই কার্যকারিতা নষ্ট হতে থাকে তখন তাকে ক্রনিক বা ধীরগতিতে কিডনি ফেইলুর বলা হয়। একটি কিডনি সম্পূর্ণ সুস্থ থাকলে এবং অপরটির কার্যকারিতা সম্পূর্ণ নষ্ট হয়ে গেলেও সুস্থ ও স্বাভাবিক জীবনযাপন করা সম্ভব। দুটো কিডনিরই শতকরা ৫০ ভাগ বিনষ্ট হলেও শরীর সুস্থ ও স্বাভাবিক থাকে, যার ফলে একজন সুস্থ মানুষ (কিডনি ডোনার) তার নিকট আত্মীয় বা অন্য আর একজন কিডনি বিকল রোগীকে (কিডনি গ্রহণকারী) একটি কিডনি দান করেও সুস্থ থাকেন, স্বাভাবিক জীবনযাপন করেন।

বিস্তারিত পড়ুন…

কোমর ব্যথা ও কিডনি রোগ

প্রায় প্রতিটি পূর্ণবয়স্ক (কখনও বা অল্পবয়স্ক) নর-নারী জীবনের কোনো না কোনো সময়ে কোমরের ব্যথাজনিত সমস্যায় ভুগে থাকেন। দেশের বিশেষায়িত হাসপাতালগুলোর বহির্বিভাগে বিশেষ করে কিডনি রোগ বহির্বিভাগে এ ধরনের রোগীর সংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলেছে। সাধারণত কিডনি রোগ বহির্বিভাগে আসা এসব কোমরে ব্যথার রোগীদের বেশিরভাগেরই প্রাথমিক পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর কিডনি রোগের কোনো অস্তিত্ব খুঁজে পাওয়া যায় না।

বিস্তারিত পড়ুন…

ডাবের পানির ঔষধি গুণ

ডাবনারকেল গাছের কাদিতে ঝুলে থাকে ডাব। আর এ ডাব থেকে পাই আমরা অতি সুপেয় ডাবের পানি। ডাব বড় হয়ে পরিপকস্ফ হলে হয় নারকেল। নারকেল থেকে আমরা পাই নারকেলের শাঁস ও নারকেলের ছোবড়া। নারকেলের শাঁস বা কোষ থেকে হয় নারকেল তেল, যা মানব চুল ও শরীরের জন্য অত্যন্ত প্রয়োজনীয়। নারকেল তেল চুল বা কালো কেশের জন্য অত্যন্ত উপকারী ও প্রয়োজনীয়। তদ্রূপ ডাবের পানি আমাদের শরীরের জন্য বিশেষ প্রয়োজন।

বিস্তারিত পড়ুন…

ওষুধ থেকেও হতে পারে কিডনি রোগ

he_osodকিডনি রোগের সঙ্গে ওষুধের অনেকটা সম্পর্ক রয়েছে। এমনকি ওষুধ খেলে কিডনি তাত্ক্ষণিকভাবে কাজ বন্ধ করে দিতে পারে, যাকে বলা হয় Acute Renal Failure (ARF)। আবার ওষুধ খেয়ে যেমন কিডনি রোগ হতে পারে ঠিক তেমনি কিডনি অকেজো হয়ে গেলে ওষুধ সেবনেও সাবধানতা অবলম্বন করতে হয়।

সুতরাং ওষুধ সেবনের আগে ডাক্তার ও রোগীকে সতর্ক থাকা দরকার, যেমন ওষুধজনিত কিডনি রোগ হতে পারে, তেমনি কিডনি রোগে ওষুধের ব্যবহার সম্পর্কেও ধারণা থাকা প্রয়োজন।

বিস্তারিত পড়ুন…

বিকল কিডনির চিকিত্সায় সিএপিডি

বিকল কিডনির বাংলাদেশে প্রতি বছর প্রায় ৪০ হাজার রোগীর কিডনি অকেজো হয়ে যাওয়ার কারণে মৃত্যুবরণ করে থাকে। এসব রোগীকে বাঁচিয়ে রাখার জন্য ডায়ালাইসিস অথবা কিডনি সংযোজনের প্রয়োজন পড়ে। ডায়ালাইসিস সাধারণত দুই ধরনের, এর একটি হচ্ছে হেমোডায়ালাইসিস এবং অপরটি পেরিটোনিয়াল ডায়ালাইসিস। হেমোডায়ালাইসিস মেশিনের সাহায্যে করা হয় এবং পেরিটোনিয়াল ডায়ালাইসিস শরীরের পেটের ভেতরের আচ্ছাদিত মেমব্রেনের সাহায্যে করা হয়ে থাকে। হেমোডায়ালাইসিস করার জন্য হেমোডায়ালাইসিস মেশিন, ডায়ালাইসিস বেড, একটি নির্দিষ্ট জায়গা, কৃত্রিম কিডনি পরিশোধিত পানির প্রয়োজন হয়। এছাড়া ডাক্তার, নার্স, সার্বক্ষণিক বিদ্যুতের প্রয়োজন পড়ে। কিন্তু পেরিটোনিয়াল ডায়ালাইসিসের আনুষঙ্গিক কিছুই প্রয়োজন হয় না। রোগী ঘরে বসেই এ ধরনের ডায়ালাইসিস নিজে নিজেই করতে পারে।

বিস্তারিত পড়ুন…

মাশরুম : ডায়াবেটিসসহ অনেক রোগের ওষুধ

mushroomমাশরুম হলো মহৌষধি গুণসম্পন্ন অত্যন্ত পুষ্টিকর ছত্রাকজাতীয় সবজি। পবিত্র আল কুরআন ও হাদিস শরিফ থেকে জানা যায়, মাশরুম আল্লাহপাকের প্রদত্ত স্বর্গীয় খাবার, যা পুষ্টিগুণে ভরপুর এবং বিভিন্ন রোগের প্রতিষেধক গুণসম্পন্ন একটি মহৌষধ। মাশরুমে আমিষ, শর্করা, চর্বি, মিনারেল ও ভিটামিন (সব); চর্বি ও শর্করা (স্বল্প);  ফলিক অ্যাসিড, লৌহ-প্রভৃতি ওষুধি গুণাগুণ ও উপাদান থাকায় এটি মানব শরীরে রোগ প্রতিরোধক ক্ষমতা বর্ধনপূর্বক ডায়াবেটিস; ব্লাডপ্রেসার; কিডনি ও এলার্জি; যৌনরোগ ও অক্ষমতা; আলসার, বাতের ব্যথা প্রভৃতি জটিল ও কঠিন দুরারোগ্য ব্যাধি মুক্ত করে নিরাময়কের মহাভূমিকা পালন করে থাকে।

বিস্তারিত পড়ুন…

কিডনি রোগ ও তার প্রতিকার

health.masudkabir.comবাংলাদেশের প্রায় দুই কোটি মানুষ কোনো না কোনোভাবে কিডনিজনিত রোগে আক্রান্ত। এক পরিসংখ্যানে জানা যায়, প্রায় ৩৫ লাখ শিশুই নানাবিধ কিডনিসংক্রান্ত রোগে ভুগছে। প্রতি বছর ১৫ থেকে ২০ হাজার লোক দ্রুতগতিতে কিডনি বিকল হয়ে মারা যায়। সারা বিশ্বে প্রায় ১৫ লাখ মানুষ বেঁচে যাচ্ছে ডায়ালাইসিস এবং কিডনি প্রতিস্থাপনের মাধ্যমে।

বিস্তারিত পড়ুন…

পানি পান করুন খালি পেটে

পানি পান করুন খালি পেটেকথায় আছে, ‘খালি পেটে জল, আর ভরা পেটে ফল।’ খালি পেটে পানি পান করার অভ্যাস আমাদের অনেক রোগবালাই থেকে মুক্ত রাখে। এখন তো শীতকাল চলছে। শীতকালে অনেকের পেট জ্বালাপোড়া কিংবা কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা দেখা যায়। সকালে ঘুম থেকে উঠেই পানি পান করুন, দেখবেন শীতকালটা শরীরের জন্য ভালো কাটবে। এমনিতেই প্রতিদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে খালি পেটে পানি পান করা শরীরের জন্য খুব উপকারী।

বিস্তারিত পড়ুন…

কিডনিতে পাথর হলে করণীয়

কিডনিতে পাথর কী
Health_Kidnyকিডনির পাথর সাধারণত আকারে ছোট হয়ে থাকে। কিডনির ভিতরে কঠিন পদার্থ  জমা হয়ে কিডনিতে পাথর হয়। সাধারণত খনিজ এবং অম্ল লবণ দিয়ে কিডনির পাথর তৈরি হয়। কিডনিতে বিভিন্ন কারণে পাথর হয়ে থাকে। তবে প্রস্রাব গাঢ় হলে তা খনিজগুলোকে দানা বাঁধতে সহায়তা করে এবং তা পাথরে রূপ নেয়। মোটকথা,প্রস্রাবে বিভিন্ন উপাদান যেমন-তরল, খনিজ এবং অম্লের ভারসাম্যহীনতার কারণে কিডনিতে পাথর হয়।

বিস্তারিত পড়ুন…

কিডনি সুস্থ রাখতে

শরীরের অন্যতম ভাইটাল অরগান কিডনি। হার্ট, ফুসফুস, লিভার, ব্রেইন-এর মত কিডনি অকেজো হলে জীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে। কিডনি ভালো না থাকলে ডায়ালাইসিস অথবা কিডনি ট্রান্সপ্লান্ট করে হয়তবা জীবনের গতি খানিকটা টিকিয়ে রাখা যায়। কিন্তু জীবন হয়ে ওঠে দুর্বিসহ।

বিস্তারিত পড়ুন…

মোট 2 পৃষ্ঠা এর মধ্যে 112