সুস্থ থাকার উপায়

বিভিন্ন দৈনিক সংবাদপত্র থেকে নেয়া চিকিৎসা সংক্রান্ত কিছু লেখা…

সুস্থ থাকার উপায় - বিভিন্ন দৈনিক সংবাদপত্র থেকে নেয়া চিকিৎসা সংক্রান্ত কিছু লেখা…

নাশতায় যা খাবেন, যা খাবেন না

খালি পেটে সবকিছুই মজাদার। হাতের কাছে যা পাওয়া যায়, সেটাই তখন অমৃত। তবে সকালবেলার প্রথম খাবার একটু বাছবিচার করে খাওয়াই বুদ্ধিমানের কাজ হবে। অনেক খাবারই আছে যেগুলো খালি পেটে খেলে নেতিবাচক প্রভাব ফেলে শরীরের ওপর। দিনের বাকি সময়ে ভোগাতে থাকে অ্যাসিডিটি ও বুক জ্বালার মতো সমস্যা। আবার কিছু খাবার আছে, যা সারাদিনের জন্য শরীর ও মন দুটোরই শক্তি জোগাবে এবং প্রশান্তি দেবে।

বিস্তারিত পড়ুন…

জিমে না গিয়েই ওজন কমান

সাধারণত যখন আমরা প্রয়োজনের চেয়ে বেশি ক্যালরির খাবার নিয়মিত গ্রহণ করি, তখন আমাদের ওজন বৃ্দ্ধি পায়। ওজন কমানোর উপায় হচ্ছে কম ক্যালরির খাবার গ্রহণ করা এবং শারিরিক কাজের মাধ্যমে অতিরিক্ত ক্যালরি খরচ করা।

বিস্তারিত পড়ুন…

সারা জীবন স্লিম থাকার ২০টি দারুণ উপায়!

নিজের ওজন নিয়ন্ত্রণ করে শরীরটাকে হালকা রাখতে হিমসিম খেতে হয় প্রায় সবাইকে। চাকরিতে ঢোকার পর কিংবা বিয়ের কিছুদিন পরই শুরু হয়ে যায় দুশ্চিন্তা- “মোটা হয়ে যাচ্ছি!” আর মেয়েদের ক্ষেত্রে সন্তান হওয়ার পর তো কথাই নেই, ওজন বেড়ে দ্বিগুণ। কিন্তু কে চায় ওজন বেশি নিয়ে ঘুরতে? অবশ্য না চাইলেও উপায় নেই, ওজন যেন কিচ্ছুতে নিয়ন্ত্রণ করা যায় না। ডায়েট, ব্যায়াম ইত্যাদি সবকিছুকে ব্যর্থ করে ওজন যেন দিন দিন বাড়তে থাকে আর বাড়তেই থাকে!

বিস্তারিত পড়ুন…

সর্বগুণের কালোজিরা

কালোজিরা আমরা সকলেই চিনি। নিমকি বা কিছু তেলে ভাজা খাবারে ভিন্ন ধর্মী স্বাদ আনতে কালোজিরা বেশি ব্যবহার করা হয় থাকে। এছারা অনেকেই কালজিরার ভর্তা খেয়ে থাকেন। অনেকে আবার কালোজিরা খেতে পছন্দ করেন না। কিন্তু কালোজিরার ব্যবহার খাবারে একটু ভিন্নধর্মী স্বাদ আনাতেই সীমাবদ্ধ নয়। আয়ুর্বেদিক ও কবিরাজি চিকিৎসাতে কালোজিরার অনেক ব্যবহার হয়। কালোজিরার বীজ থেকে তেল পাওয়া যায়, যা আমাদের শরীরের জন্য খুব উপকারী। এতে আছে ফসফেট, আয়রন, ফসফরাস। এছাড়াও কালোজিরা আমাদের দেহকে রক্ষা করে অনেক ধরনের রোগের হাত থেকে। চলুন তবে দেখে নেয়া যাক প্রতিদিন কালোজিরা খাওয়ার উপকারিতা।

বিস্তারিত পড়ুন…

যে ৮টি অভ্যাস আপনাকে রাখবে চিরকাল সুস্থ

যে ৮টি অভ্যাস আপনাকে রাখবে চিরকাল সুস্থসুস্থ সবল দেহ সকলেরই কাম্য। সুস্থ থাকার জন্য আমরা অনেকেই অনেক কিছু করি। কিন্তু সব সময়ে সুস্থ থাকা সবার জন্য সম্ভব হয়ে ওঠে না। সুস্থতার সাথে বয়সের একটি বড় সম্পর্ক রয়েছে। বয়স হলে নানান ধরণের রোগ দেহে বাসা বাঁধে। কারণ তখন শরীরের ইমিউন সিস্টেম দুর্বল হয়ে পরে। কিন্তু আগে থেকে কিছু অভ্যাস গড়ে তুললে দেহের ইমিউন সিস্টেম উন্নত রাখা আমাদের পক্ষে সম্ভব। এতে রোগে ভোগার সম্ভাবনা কমে যায় একেবারেই। এই ধরণের কিছু ভালো অভ্যাস নিয়েই আজকে আমাদের লেখা। এই অভ্যাসগুলো আমাদের সুস্থ রাখতে সাহায্য করবে জীবনভর।

বিস্তারিত পড়ুন…

মুটিয়ে যাওয়া থেকে নানা রোগ

মুটিয়ে যাওয়া থেকে নানা রোগওবেসিটি বা স্থূলতার সংজ্ঞাই হয়ে গেছে লং টার্ম কমপ্লেক্স ডিজিজ। বহু মানুষের কাছ থেকে প্রায়ই শোনা যায়, তেমন কিছুই খাই না, তবুও মোটা হয়ে যাচ্ছি। অনেক ক্ষেত্রেই মোটা হয়ে যাওয়াটা নিজের হাতে থাকে না। এটা হয় জেনেটিক ফ্যাক্টরের জন্যই। তবে এটা তো ঠিক, সাধারণত খাবার থেকে প্রাপ্ত বর্ধিত ক্যালোরিই মোটা হওয়ার চাবিকাঠি। অতিরিক্ত ক্যালোরি যদি খরচ না হয়, তাহলে সেটাই মেদের আকার ধারণ করে ওজন বাড়ায়। হিসাব বলছে যে, প্রতিদিন যে অতিরিক্ত ১০০ ক্যালোরি করে গ্রহণ করা হয়, তাহলে তা বছরের শেষে ৫ কেজি ওজন বাড়িয়ে দেয়। এছাড়াও ফাস্টফুড, কোল্ডড্রিঙ্কস, অ্যালকোহলও ওজন বাড়ায় ভীষণভাবে। আর ওজন বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বাড়তে থাকে নানা রোগও।

বিস্তারিত পড়ুন…

ওজন কমান ৭০ শতাংশ পর্যন্ত

Fat-Ladyওজন কমানোর জন্য অনেকেই বিভিন্ন ডায়েট প্ল্যান অনুসরণ করি। নিয়মিত ডায়েট প্ল্যান অনুসরণ ও হালকা ফ্রি-হ্যান্ড এক্সারসাইজ করলে আমাদের ওজন কমে আসে—এটা আমরা সবাই এখন কম-বেশি জানি। কিন্তু এই ওজন কমানোর হার ৭০ শতাংশ পর্যন্ত বাড়িয়ে দেয়া যায় ছোট একটি ব্যবস্থা নিলে।

বছরের পর বছর বিজ্ঞানীরা গবেষণা করে যাচ্ছেন কোনো একটি উপাদান খুঁজে পাওয়ার জন্য, যা আমাদের ওজন কমাতে সাহায্য করে। ২০০৮ সালে আমেরিকার মিনেসোটা বিশ্ববিদ্যালয়ের ড. সালেমার শিবলি ৩৮ জন স্থূল মানুষকে নিয়ে একটি গবেষণা পরিচালনা করেন। তিনি ১১ সপ্তাহ ধরে তাদের প্রতিদিন চাহিদার চেয়ে প্রায় ৮০০ ক্যালরি কম খেতে দিতেন। পরে দেখা যায়, যাদের রক্তে ভিটামিন ডি’র লেভেল বেশি, তারা যাদের লেভেল কম, তাদের তুলনায় বেশ দ্রুত ও বেশি মেদমুক্ত হতে পেরেছেন। এ বেশির পরিমাণ ৭০ শতাংশেরও বেশি।

বিস্তারিত পড়ুন…

মুটিয়ে যাবার বিপদ অনেক

মুটিয়ে যাবার বিপদ অনেকআপনি কি মুটিয়ে যাচ্ছেন? বিশেষ করে আপনার উদর বা ভুঁড়ি কি স্ফীত হচ্ছে? আপনার কোমরের ব্যাসার্ধ (পুরুষ হলে) কি ৯৪ সে.মি. এবং (মেয়ে হলে) কি ৮০ সে.মি.-এর বেশি? ইদানীং আহারের পর কি বেশ ক্লান্তি বোধ করছেন? চিন্তা-চেতনাগুলো কি ভোঁতা হয়ে যাচ্ছে? মেজাজ কি খিটমিটে হচ্ছে? হঠাত্ কি রেগে যাচ্ছেন?

আচ্ছা আপনার রক্তচাপ মেপে দেখুন তো। রক্তচাপ কি ১৪০/৯০ মি.মি. পারদের বেশি? এবার সকালে অভুক্ত অবস্থায় রক্তের সুগার, লিপিড প্রোফাইল (কোলেস্টেরল) এবং ইউরিক অ্যাসিড চেক করুন তো। হায় কপাল! সুগারও বেড়ে গেছে? সেই সঙ্গে বেড়েছে রক্তের খারাপ কোলেস্টেরল তথা এলডিএল ও ট্রাইগ্লিসারাইড এবং কমে গেছে বন্ধু বা উপকারী কোলেস্টেরল তথা এইচডিএল। রক্তের ইউরিক এসিডও কি বেড়ে গেছে?

বিস্তারিত পড়ুন…

নতুন বছরে ভালো খাব, খাব বেশি বেশি ফল ও সবজি

খাব বেশি বেশি ফল ও সবজি
প্রতি বেলার খাবারে একটা করে ফল বা সবজি গ্রহণ করব। ফ্রিজ খুললেই দেখব কাটা তাজা সবজি, পাশের তাকে সাজানো থাকবে ফল, যা নজরে পড়বে আমার। আরও আছে দধি। স্যান্ডউইচে বেশি বেশি সবজি দেব। সালাদ ও স্যুপে সবজি দেব বেশি করে। অমলেটেও দেব। ভাপে সেদ্ধ সবজি কী মজা! আর গোটা ফল। মৌসুমি ফল। আলু সেদ্ধ সবজিটা ভালো। কী মজা!

বিস্তারিত পড়ুন…

আয়ু বাড়াতে দ্রুত হাঁটুন!

সকাল-সন্ধ্যা কম্পিউটারের মনিটরে আটকে থাকা চোখ। আর নিজেকে দিনের একটা বড় অংশ চেয়ারে আটকে রাখা। বাড়ি ফিরে শ্রান্ত-ক্লান্ত শরীরটাকে আবার টিভিতে নিবিষ্ট করা। এই তো অনেকের জীবন! অথচ স্থূলতাসহ নানা দুরারোগ্য ব্যাধি ক্রমেই আক্রমণাত্মক হয়ে ধাবমান আমাদের দিকে। কিন্তু আমরা কি জানি, একটু শরীরচর্চা বিশেষ করে হাঁটা আমাদের জীবন থেকে ঝেঁটিয়ে বিদায় করতে পারে নানা রোগবালাই। যা আয়ু বাড়ায় আমাদের।

বিস্তারিত পড়ুন…

বাড়তি ওজন কীভাবে কমাবেন?

স্বাস্থ্য রক্ষায় আমরা এখন অনেক সচেতন ও বিজ্ঞানমনস্ক। মেদবহুলতা বা স্থূলতা এখন তাই সামাজিক সমস্যার চেয়ে স্বাস্থ্য সমস্যা হিসেবে বেশি গুরুত্ব পাচ্ছে।

বিস্তারিত পড়ুন…

মোট 2 পৃষ্ঠা এর মধ্যে 112