সুস্থ থাকার উপায়

বিভিন্ন দৈনিক সংবাদপত্র থেকে নেয়া চিকিৎসা সংক্রান্ত কিছু লেখা…

সুস্থ থাকার উপায় - বিভিন্ন দৈনিক সংবাদপত্র থেকে নেয়া চিকিৎসা সংক্রান্ত কিছু লেখা…

হাসি শরীর ও মন ভালো রাখে

আমরা চলতে-ফিরতে প্রতিনিয়ত নানা মানুষের মুখোমুখি হচ্ছি। অফিস, মার্কেটিং, ভ্রমণ, চলাফেরা, ঘোরাফেরা সব জায়গায়ই নানা লোকের সাথে মিথস্ক্রিয়ান্বিত হই। এটি কিন্তু দ্বিমুখী। আপনার সামনের লোক আপনার মনে এক ধরনের অনুভূতি জাগায়, আমরা সে অনুভূতি প্রকাশ করি পরক্ষণেই আমাদের আচরণে। আমরা আশপাশের ব্যক্তিদের কোনো অভিব্যক্তিকে সবচেয়ে ইতিবাচক সাড়া দিয়ে থাকি। কোনো অনুভূতি, অভিব্যক্তি প্রকাশ করলে আশপাশের লোকজন থেকে সবচেয়ে বেশি ইতিবাচক সাড়া আর প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়।

বিস্তারিত পড়ুন…

সুষম খাদ্য ও শরীরচর্চায় ওজন নিয়ন্ত্রণ

সুষম খাদ্য ও শরীরচর্চায় ওজন নিয়ন্ত্রণসারা বিশ্বে এখন স্লিম ফিগারের জয়জয়কার। মেদবিহীন ছিপছিপে আকর্ষণীয় দেহের গড়ন সবার প্রিয়। এই প্রত্যাশা পূরণ খুব একটা কঠিন কাজ নয়। পরিমিত সুষম খাদ্য গ্রহণ এবং নিয়মিত শরীরচর্চার মাধ্যমে স্বাভাবিক ওজন আর সুস্থ শরীরের অধিকারী হওয়া সহজেই সম্ভব। এর জন্য খুব বেশি প্রচেষ্টা কিংবা নিয়মিত জিমে যাওয়ারও প্রয়োজন নেই।

বিস্তারিত পড়ুন…

অবসেশনের কারণ ও চিকিৎসা

ocdঅবসেশন বা অবসেসিভ কম্পালসিভ ডিজ অর্ডার (ওসিডি) রোগটি অনেক পুরনো। গ্রামাঞ্চলে এ রোগটিকে শুচিবায়ু রোগ বলা হয়। অবসেশন রোগটি ছোটবেলাতেই শুরু হয়। মোট জীবনকালে কখনো বাড়ে কখনো কমে। দেখা গেছে, দুই-তুতীয়াংশ অবসেশনের রোগী ডিপ্রেসনে আক্রান্ত হয়। এটি একটি নীরব ঘাতক ব্যাধি। অবসেশন রোগে একই চিন্তা বারবার মাথায় আসে। একই কাজ বারবার করার প্রবণতা দেখা দেয়, যা রোগীর জন্য অত্যন্ত কষ্টের।

বিস্তারিত পড়ুন…

হাইপারটেনশন ও স্ট্রোক

হাইপারটেনশন বা উচ্চ রক্তচাপ মানব জাতির অন্যতম ঘাতক রোগ এবং শতকরা ১০-১৫ ভাগ মৃৃত্যুই উচ্চ রক্তচাপের কারণে হয়ে থাকে। সমীক্ষায় দেখা গেছে যে, বাংলাদেশে প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে শতকরা প্রায় ২০ জনই উচ্চ রক্তচাপে ভুগছে।

এই রোগ যথাসময়ে শনাক্ত ও সঠিকভাবে নিয়ন্ত্রণ না করতে পারলে বিভিন্ন প্রকার জটিলতাসহ অকাল মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে। তাই এই রোগ সম্পর্কে কিছু ধারণা থাকা সবারই প্রয়োজন।
রক্তচাপ কী?

বিস্তারিত পড়ুন…

প রা ম র্শ : অনিয়ন্ত্রিত রক্তচাপ

heart-shortঅনিয়ন্ত্রিত উচ্চ রক্তচাপ শরীরের জন্য ক্ষতিকর। এর প্রভাব শরীরের সব অঙ্গ-প্রত্যঙ্গে ক্ষতি হতে পারে। তবে মস্তিষ্ক, হার্ট ও কিডনি বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। রক্তচাপ অনিয়ন্ত্রণে থাকলে স্ট্রোকের ঝুঁকি সাতগুণ বেড়ে যায়, হার্ট ফেইলুরের ঝুঁকি ছয়গুণ এবং হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি তিনগুণ বাড়ে। আমাদের দেশে ১৮ বছর বয়সের ঊর্ধ্বে শতকরা ১৫ থেকে ২০ ভাগ লোক উচ্চ রক্তচাপে ভুগছে। যদি কোনো লোকের ৫০ বছর বয়সেও স্বাভাবিক রক্তচাপ থাকে এবং সে যদি ৮০ বছর বাঁচে; তবে তার উচ্চ রক্তচাপে ভোগার সম্ভাবনা শতকরা ৯০ ভাগ।

বিস্তারিত পড়ুন…

লিভার ভালো রাখার উপায়

লিভার ভালো রাখার উপায়সুস্থ জীবনযাপনের জন্য লিভারকে সুরা করা খুবই জরুরি। এটি শরীরের সবচেয়ে বড় অভ্যন্তরীণ অঙ্গ, যা খাদ্য হজমে সহায়তা করে এবং রাসায়নিক ফিল্টারপ্রক্রিয়া হিসেবে কাজ করে। তাই লিভার যদি কোনো কারণে কার্যমতা হারায়, তবে মারাত্মক স্বাস্থ্যসমস্যা এমনকি মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে। মদপান বর্জন, একই সূচ ব্যবহারে অনেকে ইঞ্জেকশন নেয়া বন্ধ করা, ভ্যাকসিন নিন হেপাটাইটিস বি ভ্যাকসিন হেপাটাইটিস সংক্রমণ থেকে রা করে।

বিস্তারিত পড়ুন…

ভালো কিছু কার্ডিও টাইপের শরীরচর্চা

exercise1অনেকেই জানেন, নিয়মিত শরীরচর্চা করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। হাঁটা একটি জনপ্রিয় কার্ডিও ব্যায়াম। কার্ডিও ব্যায়ামের ফলে আপনার সারা শরীরে শ্বাস-প্রশ্বাস দ্রুত হয়, রক্ত সঞ্চালন বাড়ে, শরীরে প্রচুর ঘাম হয়। ফলে ক্যালরি বার্ন হয়। সর্বোপরি শরীর সুস্থ থাকে এবং ওজন কমে। কার্ডিও করলে হার্ট, ফুসফুস ভালো থাকে, মেটাবলিসম বাড়ে, মন প্রফুল্ল থাকে, শক্তি বাড়ে, ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ ইত্যাদি নিয়ন্ত্রণে থাকে, কোলেস্টেরল কমে, ঘুম ভালো হয় । সর্বোপরি শরীরের ফিটনেস অনেক বাড়ে ।

বিস্তারিত পড়ুন…

ফুসফুসে যক্ষ্মা

ফুসফুসে যক্ষ্মাফুসফুসে যক্ষ্মা একটি সংক্রামক রোগ। এ রোগে চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দেয়ার মতো সুস্পষ্ট কোনো লক্ষণ নেই। কারণ অনেক ধরনের বক্ষব্যাধিতে একই ধরনের লক্ষণ থাকতে পারে। ফুসফুসের যক্ষ্মার লক্ষণগুলো হলো, কফ-কাশি, কাশির সাথে রক্ত যাওয়া, বুকে ব্যথা, ুধামন্দা, জ্বর, ওজন কমে যাওয়া প্রভৃতি। এ রোগে সব ধরনের জ্বরই থাকতে পারে যদিও অনেকে মনে করেন বিকেলের দিকে খুসখুস করে কাশির সাথে জ্বর থাকা এবং রাতে প্রচুর ঘাম হওয়া একটি বড় লক্ষণ। 

বিস্তারিত পড়ুন…

সুস্বাস্থ্যের জন্য সুখী পরিবার

সুস্বাস্থ্যের জন্য সুখী পরিবারপরিবার সমাজের মৌলিক ইউনিট। পরিবার সামাজিক জীবনের প্রাথমিক বুনিয়াদ। পরিবারের মাধ্যমেই বিকশিত হয় সমাজ এবং রাষ্ট্র। পরিবার গঠনের প্রাথমিক উৎস বিয়ে। জৈবিক প্রয়োজন, উত্তরাধিকার নির্ধারণ, সাংস্কৃতিক বন্ধন, সামাজিক সম্পর্ক স্থাপন, অর্থনৈতিক গতিপ্রবাহ সঞ্চালন ইত্যাদি বিষয়গুলো বৈবাহিক সম্পর্কের মাধ্যমে সম্পন্ন হয়ে থাকে। বৈবাহিক সম্পর্ক ছাড়া পরিবার গঠন কিংবা পারিবারিক ঐতিহ্য বজায় রাখা সম্ভব হয় না। আমরা জানি, পৃথিবীর প্রথম পরিবার আদম-হাওয়া পরিবার। হজরত আদম আ: আল্লাহর নবী ছিলেন এবং পৃথিবীর প্রথম মানব। আদম-হাওয়া পরিবারই পৃথিবীর প্রথম পরিবার। সুতরাং মানবজাতির ক্রমযাত্রা শুরু হয়েছে পরিবারপ্রথার মাধ্যমে।

বিস্তারিত পড়ুন…

ক্যান্সার প্রতিরোধে পাঁচটি বিষয়

cancerঅধিক হারে টাটকা শাকসবজি খাওয়ার অভ্যাস করুন

বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষার দেখা গেছে, সবুজ, হলুদ এবং পাতা জাতীয় শাকসবজি অন্ত্র, পায়ুপথ, প্রোস্টেট গ্রন্থি, পাকস্থলী, শ্বাসযন্ত্র, স্তন এবং জরায়ুর মুখের ক্যান্সার প্রতিরোধ করতে পারে। এ জন্য বাঁধাকপি ও ফুলকপি খুব উপকারী।

বিস্তারিত পড়ুন…

গর্ভাবস্থায় ভাইরাস সংক্রমণ

virusভাইরাস সংক্রমণ যেকোনো সময়েই হতে পারে। তবে গর্ভাবস্থায় মায়ের ভাইরাস সংক্রমণ শিশুর শারীরিক গঠনের ক্ষতি করতে পারে। গর্ভাবস্থায় যেসব ভাইরাস সংক্রমণ বেশি হয়, তার মধ্যে রয়েছে হাম, জার্মান হাম, জলবসন্ত প্রভৃতি।

জলবসন্ত এইচজেডভি ভাইরাস দিয়ে সংক্রমিত হয়। রোগজীবাণু নিঃশ্বাস-প্রশ্বাসের সাথে দেহের মধ্যে প্রবেশ করে। দু-তিন সপ্তাহের মধ্যে রোগের লক্ষণ প্রকাশ পায়। প্রথমে সামান্য সর্দি, গা ম্যাজম্যাজ করা, অল্প জ্বর দেখা দেয়।

বিস্তারিত পড়ুন…

এইডস প্রতিরোধে করণীয়

এইডস একটি সংক্রামক রোগ। ১৯৮০ সালে সর্বপ্রথম রোগটি শনাক্ত করা হয়। বর্তমানে এটি সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়েছে। এইচআইভি এর কারণে এইডস হয়। ভাইরাসটি শরীরে প্রবেশ করার পর সারাজীবন ধরে শরীরে অবস্থান করে। এটি ধীরে ধীরে শরীরের রোগ প্রতিরোধক শ্বেত রক্তকণিকাকে ধ্বংস করে দেয়। ফলে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা নষ্ট হতে থাকে। তখন যে কোনো সংক্রামক রোগ সহজেই এইচআইভি আক্রান্ত ব্যক্তিকে আক্রমণ করে।

বিস্তারিত পড়ুন…

মোট 2 পৃষ্ঠা এর মধ্যে 112