সুস্থ থাকার উপায়

বিভিন্ন দৈনিক সংবাদপত্র থেকে নেয়া চিকিৎসা সংক্রান্ত কিছু লেখা…

সুস্থ থাকার উপায় - বিভিন্ন দৈনিক সংবাদপত্র থেকে নেয়া চিকিৎসা সংক্রান্ত কিছু লেখা…

সাইনাস হেডেক

কপাল ব্যথার লক্ষণটি সাইনাস হেডেক নামে পরিচিত। এটি এমন এক ধরনের মাথাব্যথা, যা সাইনোসাইটিসের সঙ্গে দেখা দিতে পারে। সাইনোসাইটিসের কারণে সাইনাসের মেমব্রেন ফুলে ওঠে এবং সেখানে ইনফ্লামেশন সৃষ্টি হয়। এ কারণে চোখের চারপাশ, গাল ও কপালে চাপ অনুভূত হতে পারে। এ ছাড়া মাথা ধবধব করার অনুভূতি হওয়ারও আশঙ্কা থাকে। যেসব ব্যক্তির সাইনাস হেডেকের অনুভূতি হয়, তাদের মূলত মাইগ্রেন ও মানসিক চাপজনিত মাথাব্যথার কারণেই এমন অনুভূতি হয়ে থাকে। সাইনোসাইটিসের কারণে সাইনাস হেডেক হলে সঠিক পরীক্ষা ও চিকিৎসার মাধ্যমে স্বস্তি পাওয়া যায়।

লক্ষণ : বিভিন্ন কারণে যে লক্ষণগুলো দেখা যেতে পারে তা হলোÑ অ্যাকিউট সাইনোসাইটিস, হিমোফিলিয়া, নাকের পলিপ, আবহাওয়ার পরিবর্তনজনিত অ্যালার্জি, কার্বন মনোক্সাইড পয়জনিং ইত্যাদির সঙ্গে আরও যে লক্ষণগুলো দেখা যেতে পারে সেগুলো হলোÑ নাক বদ্ধ হয়ে যাওয়া, কাশি, গলাব্যথা, মাথাব্যথা, কানের ব্যথা, জ্বর, সাইনাসের আবদ্ধতা, কোরাইজা, কাশির সঙ্গে শ্লেষ্মা নির্গত হওয়া, মুখম-লে ব্যথা, সাইনাসের ব্যথা, কানে বদ্ধতা অনুভব করা ইত্যাদি।

ঝুঁকি : যে কোনো ব্যক্তির সাইনোসাইটিস হতে পারে। ক্রনিক সাইনাইটস হওয়ার ঝুঁকি বাড়ার কারণগুলো হলোÑ অ্যাজমা; পলিপস (নাকের মধ্যে মাংস বৃদ্ধি); ধূলি; ছত্রাক ও রেণুতে অ্যালার্জি; শরীরের দুর্বল প্রতিরোধ ব্যবস্থা; বাতাসে বিদ্যমান রাসায়নিক পদার্থের মতো দূষকের সংস্পর্শে আসা। এমন কোনো রোগ হওয়া, যা শ্বসনতন্ত্রের মধ্যে শ্লেষ্মার চলাচল প্রভাবিত করে। যেমনÑ সিস্টিক ফাইব্রোসিস; নাকে অস্বস্তি সৃষ্টি করে এমন কোনো কিছুর সংস্পর্শ। যেমনÑ সিগারেটের ধোঁয়া।

পরামর্শ : নিয়মিত হাত পরিষ্কার করুন। সাবান ও পানি দিয়ে হাত পরিষ্কার করে রেসপিরেটরি ইনফেকশন প্রতিরোধ করা সম্ভব। এ ইনফেকশনে অনেক ক্ষেত্রে সাইনোসাইটিস হতে পারে। চিকিৎসকের কাছ থেকে ফ্লুয়ের ভ্যাকসিন নেওয়ার ব্যাপারেও পরামর্শ নিতে পারেন। সাইনোসাইটিস উদ্রেককারী দ্রব্যের সংস্পর্শ এড়িয়ে চলুন। যেমনÑ সিগারেট, সিগার ও পাইপ স্মোক। এগুলো ও বাতাস দূষণকারী কিছু দ্রব্যের কারণে সাইনাসের মেমব্রেন ফুলে উঠতে পারে। ঘরের বাতাসের আর্দ্রতা বাড়িয়েও সাইনোসাইটিস প্রতিরোধ করা যেতে পারে। তবে বাতাস বেশি আর্দ্র করা ঠিক নয়। কারণ ঘরের আর্দ্রতা বাড়লে সেখানে ছত্রাক জন্ম নিতে পারে।