সুস্থ থাকার উপায়

বিভিন্ন দৈনিক সংবাদপত্র থেকে নেয়া চিকিৎসা সংক্রান্ত কিছু লেখা…

সুস্থ থাকার উপায় - বিভিন্ন দৈনিক সংবাদপত্র থেকে নেয়া চিকিৎসা সংক্রান্ত কিছু লেখা…

শ্বাসকষ্টে নেবুলাইজার

অ্যাজমা ও শ্বাসকষ্টের রোগীদের ফুসফুসে ওষুধ প্রয়োগের বহুল পরিচিত যন্ত্রটির নাম নেবুলাইজার। এই যন্ত্রটি দিয়ে তরল ওষুধকে সংকুচিত করে বায়ু বা অক্সিজেন দিয়ে স্প্রে বা অ্যারোসলে রূপান্তরিত করা হয়, যা খুব সহজেই নিঃশ্বাসের সঙ্গে ফুসফুসের শ্বাসনালি ও অ্যালভিউলিতে ঢুকে শ্বাসকষ্ট দূর করে। নেবুলাইজার দিয়ে শ্বাসকষ্ট দূর করার চিকিৎসাটি নেবুলাইজ নামে পরিচিত। বহু কারণে ঘরেই কিছু রোগীর নেবুলাইজ করার প্রয়োজন হতে পারে, বিশেষ করে শ্বাসকষ্ট আছে এমন শিশু ও বয়স্কদের বেলায়।

ধরন

তিন ধরনের নেবুলাইজার সাধারণত ব্যবহৃত হয়। জেট নেবুলাইজার—এটি সহজে ব্যবহারযোগ্য বলে বাড়িতেও চালানো যায়। আল্ট্রাসনিক নেবুলাইজার—এটিতে আল্ট্রাসাউন্ড দিয়ে ওষুধের তরল উপাদানকে রূপান্তরিত করে শ্বাসনালিতে পাঠানো হয়। আরেকটি হচ্ছে মেশ নেবুলাইজার—এ ক্ষেত্রে মেশ বা জালের সাহায্যে তরল ওষুধকে অ্যারোসলে পরিণত করে শ্বাসনালিতে পাঠানো হয়। সহজলভ্য ও পরিচালনা সহজ বলে বাংলাদেশে জেট নেবুলাইজার বেশি ব্যবহৃত হয়।

ব্যবহার

অ্যাজমা, সিওপিডি (ক্রনিক অবস্ট্রাকটিভ পালমোনারি ডিজিজ বা দীর্ঘমেয়াদি শ্বাসকষ্ট রোগ) ও অন্যান্য শ্বাসনালিজনিত রোগ যদি তীব্র আকার ধারণ করে, রোগী যদি ইনহেলার নিতে ব্যর্থ হয়, রোগীকে কৃত্রিম শ্বাস-প্রশ্বাস দিতে হয়, তখন নেবুলাইজার দেওয়ার প্রয়োজন হতে পারে। নেবুলাইজার দিয়ে আসলে প্রয়োজনীয় ওষুধ অ্যারোসল বা স্প্রে আকারে ফুসফুসে পৌঁছানো হয়। এ ধরনের ওষুধের মধ্যে ব্রঙ্কোডাইলেটর (সালবিউটামল, ইগ্রাট্রেপিয়াম ব্রমাইড) বেশি ব্যবহৃত হয়।

যা থাকে

নেবুলাইজারের কয়েকটি অংশ থাকে—১. কম্প্রেশার, যার মাধ্যমে চাপযুক্ত বাতাস প্রয়োগ করা হয়। ২. টিউব, যা প্লাস্টিকের তৈরি, এটি কম্প্রেশারকে নেবুলাইজারের ওষুধ চেম্বারের সঙ্গে যুক্ত করে। ৩. নেবুলাইজার—এখানে ওষুধ চেম্বারের তরল ওষুধটি অ্যারোসল বা স্প্রেতে রূপান্তরিত হয়।

ব্যবহার পদ্ধতি

►   রোগীকে আরামদায়কভাবে আধাশোয়া বা বসা অবস্থায় রাখতে হবে।

►   নেবুলাইজারের অংশগুলো জোড়া দিতে হবে। প্রতি স্প্রেতে ২৩ মিলি পানি, সঙ্গে ৫-১ মিলি সালবিউটামল সলিউশন এবং প্রয়োজনে ইপ্রাট্রোসিয়াম সলিউশন (৫ মিলি) নেওয়া হয়।

►   এবার কম্প্রেশারটিকে বৈদ্যুতিক সংযোগ দিয়ে সুইচ অন করা হয়। এতে বাতাস দ্রুত বেগে প্রবাহিত হয়। প্রয়োজনে অক্সিজেন দিয়েও নেবুলাইজ করা যায়।

►   এবার ওষুধের অ্যারোসল মাউথপিস (টিপিস) বা মাস্ক দিয়ে মুখে নিঃশ্বাসের সঙ্গে ফুসফুসে নিতে হবে। মাউথপিস ব্যবহার করলে রোগীকে এটি দাঁতের ফাঁকে রেখে ঠোঁট বন্ধ করে রাখতে হবে।

►   নেবুলাইজ করার সময় রোগীকে ধীরে ধীরে ও লম্বা শ্বাস নিতে হবে।

►   সাধারণত ৩-৬ মিলি তরল ওষুধ ৫-১০ মিনিটে নেবুলাইজ করা হয়।

যত্ন

বহু কারণে শ্বাসকষ্টের রোগীকে ডাক্তার বাড়িতে নেবুলাইজ করার পরামর্শ দিয়ে থাকেন। কিন্তু বহু রোগী বা তার সেবাদানকারীরা এটির ব্যবহার পদ্ধতি না জানার কারণে ঠিকভাবে ওষুধ প্রয়োগ করতে পারেন না। আবার নেবুলাইজ করার পর এটি যে ভালো করে পরিষ্কার করে রাখতে হয়, সেটিও মনে রাখেন না বা জানেন না। ফলে রোগী অনেক সময় উপকারের পরিবর্তে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার ঝুঁকিতে পড়ে। একবার ব্যবহারের পর নিচের পরামর্শগুলো মেনে নেবুলাইজার পরিষ্কার করা উচিত।

►   ভালো করে সাবান দিয়ে হাত ধুয়ে নিতে হবে।

►   নেবুলাইজারের কম্প্রেশার, টিউব, মাউথপিস বা মাস্ক ও নেবুলাইজার আলাদা করে ফেলতে হবে।

►   মাউথপিস বা মাস্ক ও নেবুলাইজার গরম পানিতে ৩০ সেকেন্ড রেখে ধুয়ে ফেলতে হবে। এরপর বাতাসে এগুলো শুকাতে হবে।

►   কম্প্রেশার, টিউব সাধারণত গরম পানি দিয়ে ধোয়া যায় না। টিউবের বাইরের দিকটা কেবল পরিষ্কার করা যায়।

►   মাউথপিস বা মাস্ক ছয় মাস পরপর পাল্টাতে হবে।

►   নেবুলাইজারের ফিল্টার নিয়মিত পাল্টাতে হবে অথবা ফিল্টারে ময়লা দেখা গেলেই তা পাল্টাতে হবে।

মনে রাখা ভালো

►   নেবুলাইজার অ্যাজমা ও সিওপিডি রোগীদের নিয়মিত ব্যবহার করা উচিত নয়। কারণ এটি কোনো দীর্ঘমেয়াদি চিকিৎসা পদ্ধতি নয়। এতে রোগীর শ্বাসকষ্টের সাময়িক উপশম হয় মাত্র।

►   একবার বা দুবার নেবুলাইজ করার পরও যদি রোগীর কষ্ট না কমে, তবে রোগীকে নিকটস্থ হাসপাতালে নিতে হবে।

►   কখনো কখনো নেবুলাইজ করার শুরুতে রোগীর শ্বাসনালি তাত্ক্ষণিকভাবে সংকুচিত হয়ে পড়ে, তখন রোগীকে অক্সিজেন দিতে হতে পারে।

►   নেবুলাইজারে যদি ইপ্রাট্রোসিয়াম সলিউশন ব্যবহৃত হয়, তবে তা গু্লকোমা রোগীদের চোখে ব্যথা সৃষ্টি করতে পারে। এ ধরনের রোগীর ক্ষেত্রে মাউথপিস ব্যবহার করা নিরাপদ।

►   নেবুলাইজারে ব্যবহৃত ইপ্রাট্রোসিয়াম সলিউশন বয়স্ক রোগীদের প্রস্টেট গ্ল্যান্ডের সমস্যা থাকলে তা আরো বাড়াতে পারে।

►   কিছু ক্ষেত্রে নেবুলাইজারে ব্যবহৃত ওষুধ রোগীর পটাশিয়ামের মাত্রা কমিয়ে দেয়। তাই রোগীকে পটাশিয়াম সাপ্লিমেন্ট দিতে হতে পারে।