সুস্থ থাকার উপায়

বিভিন্ন দৈনিক সংবাদপত্র থেকে নেয়া চিকিৎসা সংক্রান্ত কিছু লেখা…

সুস্থ থাকার উপায় - বিভিন্ন দৈনিক সংবাদপত্র থেকে নেয়া চিকিৎসা সংক্রান্ত কিছু লেখা…

ক্যান্সার প্রতিরোধে করণীয়

ক্যান্সারের সুনির্দিষ্ট কারণ এখনো পুরোপুরি জানা সম্ভব হয়নি। তবে চিকিৎসাবিজ্ঞানীদের মতে, ক্যান্সারের সাথে জীবনযাত্রার যোগসূত্র রয়েছে। আপনার খাবার, পানীয়বায়ু গ্রহণ ও ধূমপানের মতো অভ্যাসের সাথে রয়েছে ক্যান্সারের নিবিড় সম্পর্ক এবং আপনার প্রতিদিনের জীবনযাত্রার পরিকল্পনাই আপনাকে ক্যান্সারমুক্ত জীবনের সুসংবাদ দিতে পারে।

অধিক হারে টাকটা শাকসবজি খাওয়ার অভ্যাস : বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষায় দেখা গেছে, সবুজ, হলুদ ও পাতাজাতীয় শাকসবজি অন্ত্র, পায়ুপথ, প্রোস্টেট, পাকস্থলী, শ্বাসযন্ত্র, স্তন ও জরায়ুর মুখের ক্যান্সার প্রতিরোধ করতে পারে।

অধিক আঁশজাতীয় খাবার : অধিক আঁশজাতীয় খাবার অন্ত্র, পায়ুপথ ক্যান্সার প্রতিরোধ করে। এজন্য লাল আটা, গম, চাল, শস্যদানা, ভুট্টা, গোলআলু, মটরশুঁটি, কিশমিশ, আপেল, কমলা, টমেটো ইত্যাদি জাতীয় খাবার বেশি বেশি খেতে হবে।

ভিটামিন ‘এ’জাতীয় খাবার : মুখ, অন্ননালী, শ্বাসনালী, পাকস্থলী, অন্ত্র, পায়ুপথ, প্রস্রাব থলি ও জরায়ুর মুখের ক্যান্সার প্রতিরোধ করতে পারে ভিটামিন ‘এ’জাতীয় খাবার। ডিমের কুসুম, দুধ, দই, মাছ, কলিজা, টাটকা ফলফলাদি ও সবুজ শাকসবজিতে প্রচুর ভিটামিন ‘এ’ পাওয়া যায়।

ভিটামিন ‘সি’জাতীয় খাবার : ভিটামিন ‘সি’ যেসব অঙ্গের ক্যান্সার প্রতিরোধ করতে পারে তার মধ্যে রয়েছে মুখ, অন্ননালী, অন্ত্র, পাকস্থলী, পায়ুপথ ও জরায়ুর মুখ। ভিটামিন ‘সি’ সমৃদ্ধ খাবারের মধ্যে রয়েছে আমলকী, আমড়া, আম, পেয়ারা, ফুলকপি, কমলা, লেবু, কাঁচামরিচ, পেঁপে, টমেটো ইত্যাদি।

শরীরের ওজন নিয়ন্ত্রণ করুন : মোটা মানুষের অন্ত্র, জরায়ু, পিত্তথলি ও স্তনের ক্যান্সার হওয়ার প্রবণতা বেশি।
ধূমপান বন্ধ করুন : ধূমপানের কারণে সর্বাধিক ক্যান্সার সৃষ্টি হয়। সরাসরি নিজে যেমন ধূমপান বন্ধ করতে হবে, তেমনি পরোক্ষ ধূমপানের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। কারণ সরাসরি ধূমপানের চেয়ে পরোক্ষ ধূমপান বেশি ক্ষতিকর। জর্দা, সাদাপাতা, তামাক সেবন বন্ধ করুন। কারণ, মুখ, মাঢ়ি এবং গলনালীর ক্যান্সার সৃষ্টি করে এসব তামাকদ্রব্য।

মদপানে বিরত থাকুন : লিভার ক্যান্সারের প্রধান কারণ মদপান।
উচ্চ চর্বিযুক্ত খাবার গ্রহণ থেকে বিরত থাকুন : চর্বিযুক্ত খাবার স্তন, অন্ত্র ও প্রোস্টেট ক্যান্সার সৃষ্টি করতে পারে।

আচার, কাসন্দি, শুঁটকি ও লবণ দেয়া মাছ গ্রহণ থেকে বিরত থাকুন। কারণ এর দ্বারা অন্ত্রনালী ও পাকস্থলীর ক্যান্সার সৃষ্টি হতে পারে।