সুস্থ থাকার উপায়

বিভিন্ন দৈনিক সংবাদপত্র থেকে নেয়া চিকিৎসা সংক্রান্ত কিছু লেখা…

সুস্থ থাকার উপায় - বিভিন্ন দৈনিক সংবাদপত্র থেকে নেয়া চিকিৎসা সংক্রান্ত কিছু লেখা…

কোষ্ঠকাঠিন্য কেন হয়

kostaকোষ্ঠকাঠিন্য হচ্ছে নিয়মিত মলত্যাগের পরিবর্তে অনিয়মিত কিংবা কষ্টকর পায়খানা বা মলত্যাগ করা। পায়খানা পরিষ্কার হওয়ার জন্য খাদ্যাভ্যাস একটি প্রধান বিষয়।

পর্যাপ্ত পরিমাণ আঁশ জাতীয় বা সেলুলোজ জাতীয় খাবার খেলে পায়খানার পরিমাণ ও গঠন ঠিক থাকে এবং পায়খানা পরিষ্কার হয়। ফলমূল, শাকসবজি, আটার রুটি, ঢেঁকিছাঁটা চাল ইত্যাদি সেলুলোজ বা আঁশ জাতীয় খাবার অতি সহজেই জোগাড় করা সম্ভব।

 

নিয়মিত পর্যাপ্ত পরিমাণ এসব খাবার খেলে পায়খানা শক্ত এবং কষ্টকর হওয়ার কথা নয়। তবে আধুনিক সভ্যতা আমাদের এখন ঢেঁকিছাঁটা চালের বদলে মেশিনে ছাঁটা ধবধবে সাদা চাল, আটার বদলে ময়দা, আম, জাম, কাঁঠালের পরিবর্তে জ্যাম-জেলি ইত্যাদি মিহি খাবার এবং শাকসবজির পরিবর্তে মাছ, গোশত, ডিম, দুধের প্রাধান্য উপহার দিয়েছে। চিজ, বাটার, আইসক্রিম, জ্যাম, জেলি, চকোলেট এবং মাছ, গোশত, চর্বি ও শর্করাপ্রধান আধুনিক খাদ্যকে এখন জাংক ফুড বলা হচ্ছে।

সত্যিকার অর্থে আমরা প্রকৃতিজাত স্বাভাবিক খাবার-দাবার থেকে দূরে সরে যাওয়ার কারণেই বহুবিধ সমস্যার উদ্ভব হয়েছে। কোষ্ঠকাঠিন্য তার অন্যতম। খাবারের সাথে প্রচুর পানি পান করলে পায়খানা শক্ত হতে পারে না। কিন্তু আমরা এ ব্যাপারে অনেকেই সচেতন নই। কোনো রকম পিপাসা মেটাতে পারলেই আমরা বেঁচে যাই। অনেকে আবার পানি খেয়ে বারবার প্রস্রাব করার ঝামেলা এড়াতে পানি কম খান। পানি পানের স্বল্পতাও কোষ্ঠকাঠিন্যের জন্ম দিতে পারে।

শারীরিক পরিশ্রম ও ব্যায়ামের অভাবেও কোষ্ঠকাঠিন্য হয়ে থাকে। গ্রাম-গঞ্জের লোকেরা মাঠে-ঘাটে কাজ করে। ফলে তাদের মধ্যে কোষ্ঠবদ্ধতার লক্ষণ অনেক কম। অন্য দিকে শহুরে চাকরিজীবী, বুদ্ধিজীবী, ব্যবসায়ী শ্রেণীর মধ্যে কোষ্ঠবদ্ধতা এখন একটি প্রধান সমস্যা। কারণ তাদের শারীরিক পরিশ্রমের অভাব।

সময়মতো পায়খানা না করলেও কোষ্ঠবদ্ধতা দেখা দিতে পারে। যখন তখন পায়খানার বেগ হলে অনেকেই সামাজিকতার কারণে তা চেপে রাখেন। দীর্ঘ ভ্রমণ, মিটিং, কাজের ব্যস্ততা ইত্যাদি ক্ষেত্রে পায়খানা চেপে রাখার অভ্যাস লক্ষণীয়। তাই বেগ হলে পায়খানা করাই বুদ্ধিমানের কাজ। যাতে করে কোষ্ঠবদ্ধতা তৈরি হবে না। অনেকে আবার কোষ্ঠবদ্ধতার জন্য রেচক ওষুধ সেবক করেন। এতেও কোষ্ঠবদ্ধতা দেখা দিতে পারে।

চা, কফি পানের অভ্যাসও অনেক ক্ষেত্রে কোষ্ঠবদ্ধতার জন্য দায়ী। উদ্বেগ, উৎকণ্ঠা এবং দুশ্চিন্তার কারণেও কোষ্ঠবদ্ধতা হতে পারে। ইত্যাদি কারণগুলো থেকে বেঁচে থাকতে পারলে কোষ্ঠবদ্ধতা সৃষ্টি হবে না। মূল কথা, প্রাকৃতিক জীবনযাপন, প্রচুর আঁশজাতীয় খাবার ও ব্যায়াম করলে কোষ্ঠবদ্ধতা থেকে বেঁচে থাকতে পারবেন।